চার বাংলাদেশী জেলেকে ধরে নিয়ে পেটাল বিএসএফ, রেখে দিলো তাদের নৌকা

0
78

রাজশাহী সীমান্ত থেকে চার বাংলাদেশী জেলেকে ধরে নিয়ে গিয়ে অকথ্য নির্যাতন করে ছেড়ে দিয়েছে ভারতীয় বিএসএফ। গত বুধবার (২১ অক্টোবর) রাতে নির্যাতনের শিকার হওয়া ওই ৪ জেলেকে ছেড়ে দেওয়া হয়। নির্যাতিত জেলেরা হলেন রাজশাহীর পবা উপজেলার গহমাবোনা গ্রামের মো. আলম, তার ছেলে আনোয়ার, সিফাত ও কসবা গ্রামের জুল্লুর ছেলে সোনারুল।

পবার হরিপুর ইউপি চেয়ারম্যান বজলে রেজবী আল হাসান মুঞ্জিল বিষয়টি সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, বুধবার ভোর রাতে পদ্মা নদীতে মাছ ধরার সময় ওই চার জেলেকে তিনটি নৌকাসহ ধরে নিয়ে যায় বিএসএফ বাহিনী। সীমান্ত এলাকায় মাছ ধরার জন্য তাদের উপর ব্যাপক নির্যাতন করা হয়।

নির্যাযিত ঐ চার জেলের শরীরের বিভিন্ন অংশে লাঠির আঘাতের স্পষ্ট চিহ্ন রয়েছে। নির্যাতন করা শেষে বিএসএফ তাদেরকে ছেড়ে দিলে তারা বাড়ি ফিরে আসেন। বিএসএফ ঐ চার জেলেকে ছেড়ে দিলেও তাদের জীবিকা নির্বাহের মাধ্যম দুটি নৌকা ফেরৎ দেয়নি বলেও জানান পবার হরিপুর ইউপি চেয়ারম্যান।

বজলে রেজবী আরোও বলেন, ‘মোট তিনটি নৌকাসহ ঐ চার জেলেকে ধরে নিয়ে গিয়েছিল বিএসএফ। এর মধ্যে থেকে একটি নৌকায় করে জেলেদের ফেরত পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু ভালো নৌকা দুটি বিএসএফ রেখে দিয়েছে, ফেরত দেয়নি। এইসব জেলেরা এনজিও থেকে ঋণ নিয়ে নৌকা তৈরি করেন। একেকটি নৌকার দাম প্রায় লাখ টাকা। নৌকা দুটি ফেরত পেলে তাদের জন্য ভালো হয়।’

বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) রাজশাহী-১ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল ফেরদৌস জিয়াউদ্দিন মাহমুদ চার বাংলাদেশী জেলেকে ধরে নিয়ে গিয়ে বিএসএফের নির্যাতনের ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন। তিনি জানান, বিএসএফের সঙ্গে এ বিষয়ে তাদের পতাকা বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে। তারা এ ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ জানাবেন এবং নৌকা ফেরত আনার চেষ্টা করবেন বলে জানান তিনি।