ভাঙ্গুড়া ইউনিয়ন নির্বাচনে নির্বাচনী অফিস ভাঙচুর, দুপক্ষে চরম উত্তেজনা

0
63

পাবনা জেলাধীন ভাঙ্গুড়া উপজেলার সদর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে কে কেন্দ্র করে ব্যাপক প্রচার প্রচারণায় নেমেছেন আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। আসন্ন ২০ অক্টোবর এই ইউনিয়ন পরিষদের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

সাধারণ ভোটারদের অভিমত, নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে চারজন প্রার্থী হলেও মূলত আওয়ামী লীগের বেলাল হোসেন, বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী বিদ্যুৎ এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী গোলাম ফারুক টুকুনের মধ্যে চরম প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে। তাই প্রচার প্রচারণার নিয়ে প্রার্থী ও কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।

এমতাবস্থায় গতকাল শনিবার (১০ অক্টোবর) রাতে উক্ত ইউনিয়নের চরভাঙ্গুড়া গ্রামে নিজেদের নির্বাচনী প্রচারণা কার্যালয় ভাংচুরের অভিযোগ করেছেন আওয়ামী লীগ মনোনিত প্রার্থী বেলাল হোসেন খান (নৌকা) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী গোলাম ফারুক টুকুন(ঘোড়া) । আওয়ামীলীগ সমর্থিত প্রাথী বেলাল হোসেন খান উক্ত চরভাঙ্গুড়া গ্রামের স্থায়ী বাসিন্দা।

এই ঘটনার পর পরই ভাঙ্গুড়া থানা পুলিশ ভাঙচুর হওয়া নির্বাচনী প্রচারণা কার্যালয় পরিদর্শন করেছেন। তবে ঐ ঘটনার পর থেকেই উক্ত এলাকায় দুই পক্ষের কর্মী এবং সমর্থকদের মাঝে উত্তেজনা বিরাজ করছে।

বিভিন্ন সূত্র থেকে জানা যায়, গতকাল শনিবার রাত ১০টার দিকে চরভাঙ্গুড়া গ্রামের খাঁ পাড়া ও ঘোষপাড়ায় নৌকা মার্কার নির্বাচনী প্রচারণা কার্যালয় ভাঙচুর করে কিছু দুষ্কৃতিকারীরা। আর এর কিছুক্ষণ পরই একই এলাকায় স্বতন্ত্র প্রার্থী গোলাম ফারুক টুকুনের নির্বাচনী প্রচারণা কার্যালয়ও ভাঙচুর করা হয়।

আওয়ামীলীগ সমর্থিত নৌকার প্রার্থী বেলাল হোসেন খান নির্বাচনী প্রচারণা কার্যালয় ভাঙচুরের বিষয়ে সরাসরি কারো বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ তুলছেন না। তবে স্বতন্ত্র প্রার্থী গোলাম ফারুক টুকুনের অভিযোগ, নৌকার প্রার্থী বেলাল হোসেনের লোকজন প্রথমে ঘোড়া প্রতীকের নির্বাচনী প্রচারণা কার্যালয় ভাঙচুর করে। পরে এই ঘটনা ধামাচাপা দিতে নিজেরাই নিজেদের নৌকা মার্কার নির্বাচনী প্রচারণা কার্যালয় ভাঙচুর করে।

স্বতন্ত্র প্রার্থী গোলাম ফারুক টুকুন আরো অভিযোগ করে বলেন, চরভাঙ্গুড়া গ্রাম বেলাল হোসেন খানের নিজস্ব গ্রাম হওয়ায় তাঁর কর্মীদের হুমকিতে ঘোড়া মার্কার কর্মীরা পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। তিনি এ ব্যাপারে ভাঙ্গুড়া থানায় লিখিতভাবে অভিযোগ জানিয়েছেন।

এদিকে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী বেলাল হোসেন খান বলেন, নৌকা মার্কার নির্বাচনী প্রচারণা কার্যালয়ের পাশেই ঘোড়া মার্কার নির্বাচনী প্রচারণা কার্যালয়। আমি ঘটনার পরে জানতে পারি দুই কার্যালয়েই কর্মীরা চেয়ার ভাঙচুর করেছেন। নির্বাচনী প্রচারণা কার্যালয় ভাঙচুর একেবারেই অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা। আমরা নিজেরাই মধ্যেই বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা করছি। তবে এ ব্যাপারে আমার কারো বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ নেই।

তবে অভিযোগ প্রাপ্তির কথা স্বীকার করে ভাঙ্গুড়া থানার ডিউটি অফিসার এসআই আবুল কালাম বলেন, স্বতন্ত্র প্রার্থী গোলাম ফারুক টুকুন তাঁর নির্বাচনী কার্যালয় ভাঙচুরের বিষয়ে থানায় লিখিত অভিযোগ দিতে এসেছেন। থানা প্রশাসন ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে এ বিষয়ে পদক্ষেপ গ্রহণ করবে।

সূত্র : কালের কন্ঠ।